Ahmad Al-Saba

“নিশ্চয় আল্লাহ তোমাদের দেহ ও চেহারার কোনো দিকেই তাকাবেন না। কিন্তু তিনি তাকাবেন তোমাদের অন্তর ও আমালের দিকে” – বুখারী ও মুসলিম শরীফ

উস্তাদ নুমান আলী খানের ভাষাতাত্ত্বিক মু’জিযার শুরু ও গুরু ড. তারেক আল সুয়াইদান এবং ইসলামি আন্দোলনের বৈশ্বিক লিডার

বিসমিল্লাহীর রাহমানীর রাহীম
উস্তাদ নুমান আলী খানের মাধ্যমে কোর’আনের ভাষাতাত্ত্বিক মু’জিযার অনন্য যে বর্ণনা রয়েছে সেগুলোর পেছনে কয়েকজন অসাধারণ স্কলারের অবদান অনস্বীকার্য। একজন সেরা ব্যক্তিত্বের পেছনে থাকে একজন বা কতিপয় সেরা ব্যক্তিত্ব। তাদের অনুপ্রেরণা যখন হৃদয়ে স্থান করে নেয় তখন সেগুলোর প্রতি অন্তরের গভীর মমত্ববোধ থেকেই সেগুলোর প্রচার ও প্রসারের কাজে নিজেকে আত্মনিয়োগ হয়ে পড়ে দায়িত্ব।

উস্তাদ নুমান আলী খানের ঝোঁক ছিল তাফসিরের প্রতি বা কোরআনের অর্থগত থিমের প্রতি। কিন্তু যখন তিনি সর্ব প্রথম কোর’আনের ভাষাতাত্ত্বিক মু’জিযার উপর ১০ ঘন্টার আরবী লেকচার শুনতে শুরু করেন ও নোট লেখা শুরু করেন তখন মনের অজান্তেই যেন কোর’আনের প্রতি ভালোবাসার এক অনন্যতা জায়গা করে নেয়। সেই থেকে শুরু। তিনি তাফসীর বা কোরআনের অর্থগত থিমের পাশাপাশি কোরআনের অনন্য ও অদ্বিতীয় আরেকটি দিক খুঁজে পান যেটি কিনা কোর’আনের চিরকালীন সৌন্দর্য ও চ্যালেঞ্জের চলমান গতির সীমানাহীন পথ। অর্থাৎ কোর’আনের ভাষার মধ্য দিয়ে যে কোর’আনের সৌন্দর্য ও অলৌকিকত্ব রয়েছে সেগুলোই প্রমান করে এটা মানব রচিত হতে পারে না, কখনই সম্ভব নয় এবং এটা কোর’আনের সেই নাযিলের সময় থেকে এর বিভিন্ন আঙ্গিকে নতুন ধারায় এর প্রকাশ করে চলেছে ক্রমাগতভাবে।

এই ভাষাতাত্বিক মু’জিযার অসাধারণত্ব বর্ণনার জন্য এ পর্যন্ত অনেক মানুষ ইসলাম গ্রহণ করেছে। প্রাচীনকালের অনেক স্কলার কোরআনের মু’জিযা নিয়ে কথা বলেছে কিন্তু স্বয়ং কোর’আনের ভাষার মধ্য দিয়ে যে অসাধারণ মু’জিযার প্রকাশ পেয়েছে সেটা ফখরুদ্দিন আল-রাযি, আল্লামা যামাখশারী এর ভাষার অসাধারণ বর্ণনা থেকে শুরু করে আবু বাকার বাকিল্লানি এর অনিন্দ ও সৌন্দর্যময় অসাধারণ বর্ণনায় ঠায় পেয়েছে।

বর্তমানে এর নতুনত্ব দান করেছেন আর আমাদের সম্মুখে তুলে এনেছেন অসাধারণ এই স্কলার, যার বর্ণনার যৌক্তিক সৌন্দর্যের ভালোবাসায় সিক্ত উস্তাদ নুমান আলী খানের পরিচিতি সমস্ত বিশ্বের দরবার তুলে ধরেছে, সেই স্কলার ড. তারেক আল-সুয়াইদান(Dr. Tareq Al Suwaidan)(আর অন্যজন ড. ফাদেল সালেহ সামেরাঈ-আর এ দু’জনের কোরআনের অসাধারণত্বের মু’জিযাগুলোর কাজ আরবীতে এবং উস্তাদ নুমান আলী খান তাদের লেকচার ও বই এর ছাত্র)।

ড. তারেক আল-সুয়াইদান

tarek al suwaidan

 

ড. ফাদেল সালেহ সামেরাঈ

উস্তাদ নুমান আলী খান

কোর’আনের ভাষাতাত্বিক মু’জিযার বর্ণনা ড. তারেক আল-সুয়াইদান দিয়েছেন আরবীতে। এটা ছিল বিস্তারিত এবং টানা ১০ ঘন্টার লেকচার!!

কোরআনের ভাষাতাত্বিক মু’জিযার উপর ১০ ঘন্টার লেকচার দিয়েছেন এই স্কলার। তাহলে নিশ্চয় বুঝতে পারছেন এই স্কলারের জ্ঞানের মাত্রা। হ্যা, ক্লাসিক্যাল এবং বর্তমান ইসলামী লিডারদের প্রশিক্ষক হিসেবেও তিনি বর্তমান মুসলিম বিশ্বেই নয় বরং তাঁর লিডারশিপ প্রোগ্রামের এমন রিসার্স ও প্রোগ্রাম রয়েছে যা সারা বিশ্বের মধ্যে একমাত্র তাঁর অধীনেই রয়েছে। যেই পশ্চিমা বিশ্বের প্রতি আমরা পঞ্চমুখ হয়ে দাঁড়িয়ে থাকি তাদেরকেও পেছনে ফেলে এসেছেন এই স্কলার।

ইংরেজিতে রয়েছে তাঁর কয়েকটি মাত্র লেকচার। তবে এগুলো দেখলেই বুঝতে পারবেন তাঁর জ্ঞানের পরিধি কী বিশাল ও গবেষণালব্ধ। তিনি লিডারশিপ ট্রেনিং ও স্ট্রাটেজিক ম্যানেজমেন্ট এর লিডার এবং এ হিসেবে বাস্তবেও তাঁর পরিচিতি রয়েছে। তিনি এক ইন্টারভিউ এ বলেছেন যে বর্তমান বিশ্বে ইসলাম প্রচারের জন্য যা যা দরকার সবই তিনি করেছেন। টিভি, মেডিয়া, স্যাটেলাইট, বেস্ট সেলিং বই এবং ইসলামিক এডুকেশনাল সেন্টারস—সবই। এখানেই তিনি আলাদা একজন ব্যতিত্ব নয় বরং নিজেই একাধিক প্রতিষ্ঠান। ইসলামের জন্য পশ্চিমাদের দারস্ত হব কেন?, ইসলাম প্রচারের জন্য অন্যের মেডিয়ার উপর চেয়ে থাকব কেন?, ইসলামের উপর সেরা বই এর জন্য অন্যের দারস্ত হব কেন?—বরং ইসলামের জন্য যা লাগে সব আমরাই করব…এ স্বপ্ন থেকেই আজ সবই তাঁর রয়েছে।

ইসলাম গবেষণায় তাঁর রীতি এক কথায় অসাধারণ। আমরা অনেকেই ক্লাসিক্যাল স্কলার বা আমাদের নিজেদের স্কলারদের বর্ণনাকে দলীল হিসেবে মানি। এসবের সোর্স জানি না কিন্তু তাদের কথার উপর নির্ভর করে থাকি কিন্তু এগুলোর অনেক জিনিসের মূলনীতি ও গবেষণারীতি কিছুই জানি না। আর এজন্য এগুলো অকাট্য ভেবে বসি। এভাবে ভুলের মধ্য দিয়েই চলতে থাকি। এখানে ড. তারেক আল-সুয়াইদান এমন কিছু বর্ণনা এনেছেন তাঁর লেকচারগুলোতে যেগুলো দেখলে বুঝা যায় আমাদের স্কলারদের গবেষণারীতি ও বর্ণনার মধ্যে এবং ইসলামের মূলনীতি ও বর্ণনার মধ্যে কত ফারাক! আমাদের ক্ল্যাসিকাল ধাচের বা ইসলামের সকল সোর্সের গবেষণারীতির সাথে পরিচিত নয় এমন আলেমদের বর্ণনার সাথে ইসলামের অনেক জিনিসের সরাসরি বর্ণনা ও বাস্তবতার বিরোধ রয়েছে। এ থেকে শুরু হয়েছে ইসলামকে সেকেল বা আধুনিকতার বিরোধী অথচ ইসলাম ফিতরাত এবং সম্মানের সাথে কত উচু করেই না মিনারের মত শিখরে দাঁড়িয়ে রয়েছে।

তিনি যে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে সরাসরি কথা বলেন ইসলামিক উসুল, গবেষণা, ইতিহাস এবং এসবের প্রাসঙ্গিকতাকে একত্র করে আর এজন্য তিনি আমেরিকা, আরব আমিরাত, সৌদি আরব, বেলজিয়ামসহ কতিপয় দেশে নিষিদ্ধ রয়েছেন।

আমরা হয়ত অনেকেই আল-কোরআনের শব্দ তাত্ত্বিক নতুন মু’জিযার কথা জানি না যা তাঁর গবেষণার ফল হিসেবে আজ আমাদের মাঝে হাজির। উস্তাদ নুমান আলী খান সেগুলোর অনেক বর্ণনা করেছেন কখনো তার নামের উল্লেখ করে; কখনও নামহীনভাবে।

ম্যানেজমেন্ট, স্ট্রাটেজিক প্ল্যানিং এবং ইসলামিক কোয়ালিটি বা লিডারশিপের ক্ষেত্রে ইসলামিস্টদের দৈন্যদশার দিকে ইংগিত করে তিনি বলেন: আমি কখনই কোন কাজে ইসলামিস্ট লোক হায়ার করি না…কারণ তারা যথেষ্ট পরিমানে অজ্ঞ, কাচা। এজন্য তিনি বিশ্বের ইসলামিক স্কলারদের লিডারশিপ ট্রেইনিংও দিয়ে থাকেন তার অধীনে। তার মানে বর্তমান বিশ্বে ইসলামের এ দশার কারণ ইসলামিস্ট লিডারদের লিডারশিপ কোয়ালিটির অভাব।এ অভাব দূর করতে পারলে, তাদের জ্ঞানের দক্ষতা বৃদ্ধি করতে পারলে ইসলামকে বিজয়ী শক্তি হিসেবে সম্মুখে আনা ব্যাপারই না।

আরব স্প্রিং এর সময়ের সেই ইতিহাসকে তিনি অনেক আগেই অন্যান্য স্কলারের মত বলেছিলেন এবং এখনও বলেন। তিনি মিশরের মুসলিম ব্রাদারহুডকে ক্ষমতায় অংশগ্রহণ করতে নিষেধ করে বলেছিলনে ঃ যে কোন দল, বিল্পবের পর যদি ক্ষমতা নেয় তারা ব্যর্থ হতে বাধ্য। কিন্তু মুসলিম ব্রাদারহুড সেটা নেয় নি আমলে। তাঁর যুক্তি ছিল বিপ্লবের পর অর্থনৈতিক অবস্থা, রাজনৈতিক বা একটি দেশের পূর্ণ অবস্থা থাকে বিশৃংখল যা সারাতে অনেক সময়ের প্রয়োজন, অনেক বেশি আর্থিক সাহায্য ছাড়া সেটা করা সম্ভব নয় আর এরুপ অবস্থায় যে কেউ ক্ষমতা নিলে তারা ব্যর্থ হতে বাধ্য।

আরব বিশ্বের মাঝে তিনি দ্বিতীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিত্ব(প্রথম আমর খালেদ)এবং আয়ের দিক থেকেও দ্বিতীয় ধনী।

ইসলামের গবেষণারীতি অনেক উন্নত, ব্যালান্স, ইতিহাস প্রাসঙ্গিক। কিন্তু ইসলাম আজ আমাদের কাছে নিজেদের অহংকারের ও আমাদের প্রিয় শাইখদের ডিফেন্ডের বস্তুতে পরিণত হয়েছে। আমরা পুরাতন গবেষণার ভুল-ভ্রান্তি তুলে ধরলেও আমাদের ব্যবহারিক ও আত্মিক উন্নতির অভাবে হেতু অনেক কিছু নেই না…অথচ উচিৎ ছিল বিশুদ্ধতার মাপকাঠি অনুযায়ী এগুলো নিয়ে মূলনীতির আলোকে পুনরায় জানা ও উপলব্ধি করে সঠিককে মেনে নেওয়া।

আমি আমার জীবনে যতগুলো স্কলার দেখেছি তাদের মধ্য থেকে তারিক সুয়াইদান এর মত ইতিহাসকে বর্তমানের আলোকে জীবন্ত করে আনার মত কমই দেখেছি। ওয়াল্লাহি, তিনি যেভাবে সুন্নাহকে তুলে আনেন এবং বর্তমানের লিডারদের অসংগতি তুলে ধরেন এক কথায় অসাধারণ।

 

তার মত লিডারদের মুসলিমদের উচিৎ সম্মুখে আনা। একজন প্র্যাক্টিকাল, প্র্যাগম্যাটিক ও লিডারশিপের বাস্তব উদাহরণ। আমাদের ইসলামী উসূল থেকেই মনে রাখা উচিত…লিডারশিপের জায়গাতে লিডার দরকার, সৎ হওয়া এখানে দিত্বীয় প্রায়োরিটির ভিত্তি। কেবল সৎ হওয়া যদি লিডারশিপের জন্য প্রাধান্য হত তবে প্রথম ৫ম ইসলাম গ্রহণকারী, জান্নাতের সুসংবাদপ্রাপ্ত আবু যার গিফারী(রা)ই খলিফা হতেন আলী (রা), উমার(রা), বা উসমান(রা)এর তুলনায়।

অত্যন্ত আনন্দের বিষয় হল এই দুই উস্তাদের আরবী লেকচার, লেখাগুলো এখন ইংরেজী অনুবাদ হচ্ছে!! এই প্রজেক্ট নিয়েছে বিখ্যাত ইসলামী স্কলারভিত্তিক ও দাঈদের লেকচার সাইট http://www.halaltube.com. আল্লাহ তাদের সাহায্য করুন, বরকত দিন।

ইসলাম আল্লাহর ধর্ম। এটি আল্লাহর দেওয়া ধর্মের কারণে কখনই বিফল হবে না। কিন্তু আমরা যদি ইসলামের মূলনীতি, গবেষণা, ইতিহাসের প্রাসঙ্গিকতার বিচারে ইসলামকে না মানি তবে এই ইসলামের ধারাই আমাদের পথভ্রষ্টতার দিকে নিয়ে যাবে। এ থেকে বাঁচতে হলে রাসূল (সা)এর সেই হাদীসের দিকে ফিরে যেতে হবে “প্রত্যেক শতাব্দীতে মুজাদ্দিদ আসবে যে/যারা দ্বীনকে পরিশুদ্ধ করবে”। তাই ইসলাম কখনও পুরাতন হয় না; অপরিশুদ্ধ মূলনীতিকে শুদ্ধ করা এবং চলমান বিশ্বের সাথে উসূলের আলোকে এর আধুনিকায়ন করার জন্য আসে কিছু প্রকৃত স্কলার/আলেম…যারা ইসলামকে চিরসজীব করে রাখে তাদের মেধা, শ্রম ও প্রকৃত জ্ঞান দিয়ে…যারা উলুল আলবাব(সূরা আলে ইমরান)

প্রয়োজনীয় লিংকসমূহ

অফিশিয়াল ওয়েবসাইট(ইংলিশ, আরবী) – http://www.suwaidan.com/

ফেইসবুক – https://www.facebook.com/Dr.TareqAlSuwaidan

টুইটার – https://twitter.com/tareqalsuwaidan

ইউটিউব(আরবী)- https://www.youtube.com/user/DrAlSuwaidan

উস্তাদ নুমান আলী খানের আরেক উস্তাদ Dr. Fadel Saleh Sameraee (ড. ফাদেল সালেহ সামেরাঈ)–https://www.facebook.com/NAKBangla/posts/1505747753013179

উস্তাদ নুমান আলী খান নীচের সংখ্যাতাত্ত্বিক মু’জিযার বর্ণনাটি নিয়েছিলেন ড. তারেক আল সুয়াইদান থেকে –https://www.facebook.com/NAKBangla/posts/1508220842765870

উস্তাদ নুমাম আলী খান, কোরআনের অসাধারণ বর্ণনা, পরিচিত ও ক্যাটেগরিভিত্তিক কিছু বেস্ট রিসোর্স

http://tinyurl.com/lcon4u4

Ulul albab who are they?

1. Foundations Of Faith ~ Nouman Ali Khan!!!

https://www.youtube.com/watch?v=f9MiGIDcpjE

2. Nouman Ali Khan – The Ulul Albab [Total 4 Parts]

https://www.youtube.com/watch?v=t7RgbykNLOQ

তাঁর লেকচারসমূহ

লেকচারগুলো ইউটিউবে সার্চ দিলেই পাবেন।

DR TARIQ AL-SUWAIDAN Titlel : Theme Of Al-Quran

https://www.youtube.com/watch?v=eorIt12qG3A

Leadership From An Islamic Perspective – Dr Tareq Suwaidan –

Dr Tareq Al Suwaidan – Future of Islam(New One)

The Future of Islam(1) – Dr. Sh. Tareq Al-Suwaidan {Full Lecture}

Islam, Democracy & ISIS – Dr Tareq Al Suwaidan

Six Major Signs of Leadership – Dr Tareq al Suwaidan

Leadership Challenges For The New Millenium – Dr Tareq al-Suwaidan

The goals of islamic laws

Dr Tareq Al Suwaidan – Communication Skills

Dr Tareq Al Suwaidan – Process of Tarbiah

Dr.Tareq Al-Suwaidan: 6 Issues Related to Leadership

Formulas of Success-Dr Tareq Al Suwaidan

Dr Tareq Swaidan – Training Plan (3 parts)

Dr Tareq Al Suwaidan – Creativity

Dr Tareq Al Suwaidan – Communication Skills

Plan your life – the Tareq Al Suwaidan(Interview)

Themes Of Quran – By – Dr. Tareq Al Suwaidan(2)

https://www.youtube.com/watch?v=eZnlTb2ElCI

 

মুসলিম বিশ্বে ও ইসলামিক সংগঠনে কীভাবে সফল ও পদ্ধতিগত পরিবর্তন আনতে হবে, স্ট্রাটেজি কী হবে, এবং কীভাবে বাস্তাবায়ন করতে হবে – এ সংক্রান্ত তার বিস্তারিত স্ট্রাটেজি

https://marthad.wordpress.com/2011/10/19/scmm/

এই সেই সেহর আল-কোর’আন(আরবী)(কোর’আনের যাদু/মু’জিযা), টানা ১০ ঘন্টার উপর কোরআনের ভাষাতাত্ত্বিক মু’জিযার বর্ণনা, যা থেকে উস্তাদ নুমান আলী খানের কোরআন স্টাডির ধরণে যোগ হয় ভাষাতাত্ত্বিক গভীর ও সৌন্দর্যময় বিশ্লেষণ।

Sehir Al-Quran Tareq Al-Suwaidan N-01 سحر القرآن

https://www.youtube.com/watch?v=68ChF6rP4pA&list=PL336ED92AA2812FDD&spfreload=10

কেউ আরবী জানলে এ’দুজন স্কলারের লেকচারের ইংরেজি অনুবাদে সাহায্য করতে পারেন।

http://www.halaltube.com/halal-tube-needs-your-help-to-transcribe-lectures

তিনি একজন পেট্রুলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার, একজন ম্যানেজমেন্ট ও স্ট্রাটেজিক লিডারশিপ, একজন মেডিয়া ব্যক্তিত্ব, একজন ইসলামিক লিডার এবং একজন গভীর পান্ডিত্বসম্পন্ন ইসলামিক স্কলার – একই সাথে এত কিছু যেন আল্লাহর অপরিসীম নিয়ামাতের ধারা বইছে এই অসাধারণ ব্যক্তিত্বের মধ্য দিয়ে।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

w

Connecting to %s

%d bloggers like this: